সয়া নিয়ে কিছু কথাঃ আমাদের প্রাত্যহিক খাবারের তালিকায় নানা আয়োজন থাকে । আর সে তালিকায় । সয়ার তৈরি খাবার কতটা স্বাস্থ্যকর , তা কি আমাদের জানা আছে ? সয়ার তেল জনপ্রিয় হলেও এর তৈরি চিজ , দুধ , বাদাম , ময়দা ইত্যাদিতেও আছে নানা উপকারিতা । সয়া বা সয়াবিনের সেসব উপকারিতা নিয়ে আজকের আয়োজন । মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের এক গবেষণায় জানানো হয়েছে , সয়াতে থাকা প্রোটিন রক্তে কোলেস্টেরল বৃদ্ধি রোধ করে , যা হৃদযন্ত্রের রোগ নিয়ন্ত্রণে বেশ উপকারী । স্বল্প প্রোটিন সমৃদ্ধ সয়া থেকে উৎপাদিত তেল , দুধ , চিজ ইত্যাদি হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের ঝুঁকি থাকে , তা অনেকাংশে রোধ করে । এছাড়া যারা শরীরের মেদ চর্বি নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছেন , তাদের জন্য সয়ার বিকল্প খুব কমই আছে । সয়ার উপকারিতাঃ ১ . এটি চর্বিহীন মাছ বা মাংসের বিকল্প এবং মাংসের অনান্ন সকল গুণে ভরপুর । ২ . সয়াবিন উচ্চ রক্তচাপ ও কোলেষ্ট্ররাল কমাতে সহায়ক । ফলে হার্টের উপর চাপ কমে আসে । ৩ . মহিলাদের মনোপোজ পরবর্তী সময়ে তাদের হৃদপিন্ড , হাড়ের ক্ষয় , ব্রেষ্ট কান্সার ও রক্তচাপ ( BP ) প্রভৃতি রক্ষা করে । ৪ . সয়াবিন ব্লাড সুগার স্থিতিশীল রাখে ফলে ডায়বেটিসের ঝুঁকি হ্রাস করে , কিডনি ও হার্ট রক্ষা করে ৫ . এটা পেট কষার নিরামক , পরিপাকে সহায়ক এবং পাকস্থলির কার্যক্রম শক্তিশালি করে। ৬ . এটি সার্বিক সাস্থের উন্নয়ন করে । এটা খেয়ে স্বাস্থ কমানো এবং বাড়ানো দুটাই করা যাবে । ৭ . এটা শক্তিবর্ধক এবং সহনশীল । ৮। এটি হাই প্রোটিন জাতীয় খাবার , ২১ টি প্রোটিনের সমস্যা । ৯ . এতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে শ্বেতসার , ভিটামিন এ , বি , বি – ১ , ভিটামিন – সি , আয়রন , নিয়াসিন , ফসফরাস এবং প্রচুর খাদ্য উপযোগী আঁশ । ১০ , এটা ব্রেনের কার্যক্ষমতা বাড়ায় । শিশুদের মেধা বিকাশে সাহায্য করে । ১১ . গর্ববতী মায়েদের জনা বিশেষ উপকারব। ১২ . হাড়ের ক্ষয় রোধ ও মজবুত করে । সয়ার উপাদান সমূহঃ ১ . ২১ টি প্রোটিনের সমাহার । (Amino Acid ) ২ . এছাড়া প্রতি ১০০ গ্রাম সয়াতে শ্বেতসার ১০ গ্রাম । ভিটামিন – এ ১৯০ এমজি ভিটামিন -বি ০.২৩ এমজি ভিটামিন – বি২ ০.১৪ এমজি নিয়াসিন ১.১ এমজি ভিটামিন – সি ১৫ এমজি ক্যালসিয়াম ১৩১ এমজি ফাসফরাস ১৪২ এমজি আয়রন ২ .২৫ এমজি প্রোটিন(আমিষ) ৩১ এমজি ৩ . ওমেগা – ৩ ( Alpha Linoleic Acid ) আছে ।

৳ 950